রুট কী? কেন আপনার ফোন রুট করবেন?image

প্রিয় ভাই/বোন আসসালামু আলাইকুম প্রথমে আমার সালাম নেবেন । আশা করি ভালো আছেন । কারণ TrickTuneBD.Com এর সাথে থাকলে সবাই ভালো থাকে । আর আপনাদের দোয়ায় আমি ও ভালো আছি ।

অনেকদিন পর আপনাদের সামনে নতুন একটি টিউটোরিয়াল নিয়ে হাজির হলাম। আজকে আমি আলোচনা করব এনড্রয়েড রুট সম্পর্কে। রুট এর বিস্তারিত নিয়ে আজকে আলোচনা করব। একেবারে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত। যদিও আমার এই টিউটোরিয়াল এর আগে অনেক টিউটোরিয়াল দেখে থাকবেন বা থাকতে পারেন।কেন আপনার এনড্রয়েড ফোন রুট করবেন ট্রিকটিউনবিডি

রুট কী?

সাধারণভাবে রুট বলতে অ্যাডমিনিস্ট্রেটর বা প্রশাসক কে বোঝায়। কিন্তু এই রুট মানে তা নয়। এই রুট হচ্ছে একটা পারমিশন বা অনুমতি। যদিও এর বাংলা অর্থে দাড়ায় গাছের শিকড়। আর লিনাক্সে রুট বলতে সেই পারমিশন বা অনুমতিকে বোঝায় যা ব্যবহারকারীকে সব সময় ক্ষমতার অধিকারী করে তোলে (অবশ্যই কেবল সেই কম্পিউটার, ডিভাইস বা সার্ভারে!) আর এই পারমিশন বা অনুমতি থাকলে ব্যবহারকারী সেই ডিভাইসে যা ইচ্ছে তাই করতে পারে। যিনি লিনাক্স-চালিত কম্পিউটার বা সার্ভারে যা ইচ্ছে তাই করতে পারেন অথবা যার সব কিছু করার অনুমতি রয়েছে, তাকেই রুট ইউজার বলা হয়।

কেন নতুন ডিভাইসে রুট করা থাকে নাঃ

ফোন কোম্পানি ইচ্ছে করেই তাদের ডিভাইস গুলো লক করে রাখে। রুট ফোল্ডারে থাকা সকল ফাইল গুলো খুবই গুরত্বপূর্ণ। কোন ভুল করে যদি আপনি এই ফোল্ডারগুলো থেকে এই ফাইলগুলো মুভ করে ফেলেন (Move)। ঠিক তখনই আপনার ফোন ব্রিক হয়ে যাবে। ব্রিক মানে ইটে পরিণত করা। আর ডিভাইস লক করা থাকলে আপনি ফোনের নিজস্ব যে অ্যাপসগুলো রয়েছে সেগুলো ডিলিট বা আনইনস্টল করতে পারবেন না। অনেকেই ইন্টারনাল মেমোরি খালি করার জন্য বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন এসডি কার্ডে ট্রান্সফার করে থাকেন।ঠিক তখনই আপনার ফোন নষ্ট হয়ে যাবে।

কেন আপনার ফোন রুট করবেন?কেন আমরা ফোন রুট করি ট্রিকটিউনবিডি

আমরা যারা রুট সম্পর্কে একটু বেশি জানি বা বুঝি শুধু আমরা তারাই ফোন রুট করার জন্য বেশি এক্সাইডেট হয়ে পড়ি। আর আমার মতে তাদেরই ফোন রুট করা উচিত বা খুব দরকার তারাই শুধু রুট করবেন। কেউ ডিভাইসের পারফরম্যান্স বাড়ানোর জন্য বা ইন্টারনাল মেমোরি ফাঁকা করার জন্য রুট করে থাকেন, কেউ ওভারক্লকিং করার মাধ্যমে ডিভাইসের গতি বাড়ানোর জন্য রুট করেন, কেউ স্বাধীনভাবে কাজ করা ডেভেলপারদের তৈরি বিভিন্ন কাস্টম রম ব্যবহার করার জন্য, কেউ বা আবার রুট করার জন্য রুট করে থাকেন।

ফোন রুট করার সুবিধাঃ

পারফরমেন্স বাড়ানোঃ বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে ডিভাইসের অব্যবহৃত ফাইল, টেমপোরারি ফাইল ইত্যাদি নিয়মিত মুছে ফোনের গতি ঠিক রাখা। ওভারক্লকিং করাঃ সিপিইউ স্পিড স্বাভাবিক অবস্থায় যতটা থাকে তারচেয়ে বেশি দ্রুত কাজ করানো। এর মাধ্যমে কোনো বিশেষ কাজে প্রসেসরের গতি বাড়ানোর প্রয়োজন পড়লে তা করা যায়। আন্ডারক্লকিং করাঃ যখন ডিভাইস এমনিতেই পড়ে থাকে, তখন সিপিইউ যেন অযথা কাজ না করে যে জন্য এর কাজের ক্ষমতা কমিয়ে আনা। এতে করে ব্যাটারি ব্যাকআপ বাড়ানো সম্ভব। কাস্টম ইউআই: আপনার ডিভাইসের হোমস্ক্রিন, লক স্ক্রিন, মেনু ইত্যাদি বিভিন্ন ইউজার ইন্টারফেসের ডিজাইন একটা সময় পর আর ভালো নাও লাগতে পারে। তখন আপনি ডিভাইসে নতুনত্ব আনতে পারবেন নতুন সব কাস্টম ইউজার ইন্টারফেসের মাধ্যমে। এগুলোকে অন্যভাবে রমও বলা হয়।

কাস্টম রুম সম্পর্কঃ

কাস্টম রুম ইন্সটল করার সুবিধা অনেক রয়েছে। অনেক ডেভেলপার বিভিন্ন জনপ্রিয় ডিভাইসের জন্য কাস্টম রম তৈরি করে থাকেন। এসব রম ইন্সটল করে আপনি আপনার সেটকে সম্পূর্ণ নতুন একটি সেটের রূপ দিতে পারবেন। বাইরে থেকে অবশ্যই এর ডানা-পাখনা গজাবে না বা ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেল থেকে ৮ মেগাপিক্সেল হবে না, কিন্তু ভেতরের ডিজাইন ও ক্ষেত্রবিশেষে পারফরম্যান্সেও আসবে আমূল পরিবর্তন।

ফোন ব্রিক বা নষ্ট হওয়াঃ

ব্রিক অর্থ ইট। আর ফোন ব্রিক মানে আপনার ডিভাইসকে ইটে রূপান্তরিত করা। অর্থাৎ, এর কাজ করার ক্ষমতা হারানো। রুট করা ও এর পরবর্তী বিভিন্ন কাজের সময় একটু এদিক-সেদিক হলেই ফোনে স্থায়ী বা অস্থায়ী সমস্যা হতে পারে। আপনার ফোনের প্রস্তুতকারক কোম্পানি ফোনটি আনরুট অবস্থায় দেন যেন এর ক্ষতি না হয়। রুট করার মাধ্যমে আপনি সেই নিশ্চয়তা ভেঙ্গে ফেলছেন। রুট এক্সেস মাঝে মাঝে জেলব্রেকিং এর সাথে তুলনা করা হয়, যা অ্যাপল এর iOS অপারেটিং সিস্টেম দ্বারা চালিত ডিভাইস সমুহে করা হয়ে থাকে। যাইহোক, এদের ধারনা আলাদা। জেলব্রেকিং এর মাধ্যমে অ্যাপেল এর দেয়া কিছু নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করা হয়, যার মধ্যে অপারেটিং সিস্টেম পরিবর্তনও রয়েছে (এক্ষেত্রেও বুটলোডার দ্বারা নিয়ন্ত্রন করা হয়) । জেলব্রেকিং এর মাধ্যমে অফিসিয়ালি অনুমোদন দেয়া হয়নি, এমন অ্যাপ ব্যবহার করা যায় (সাইডলোড) এবং ব্যবহারকারীকে সিস্টেম পরিবর্তনের কিছু বিশেষ ক্ষমতা দেয়া হয়। শুধুমাত্র সংখ্যালঘু অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের বুট লোডার লক করা থাকে এবং অনেক বিক্রেতারাই যেমন HTC, সনি, আসুস এবং গুগল আনলক করার ক্ষমতা প্রদান করে, এমনকি অপারেটিং সিস্টেম সম্পূর্ণরূপে প্রতিস্থাপন করে ফেলাও! সাইডলোড দ্বারা যেসব অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করার ক্ষমতা পাওয়া যায়, তার বেশির ভাগ অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে রুট করা ছাড়াই পাওয়া যায়।

তাহলে ভাই/বোন ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন TrickTuneBD.Com এর সাথে থাকুন । আর এই সাইট যদি ভালো লাগে আপনার বন্ধুদের জানাবেন । ধন্যবাদ ।

3 thoughts on "রুট কী? কেন এনড্রয়েড ফোন রুট করবেন বিস্তারিত।"

  1. TrickTuneBDAdministrator Post Creator says:
    ফ্রীলান্সিং করুন বাংলা পোস্ট লিখে।
    1. TrickTuneBDAdministrator Post Creator says:
      Wellcome Bro

Leave a Reply